জন্মভূমির আলো

Share Button

Fazlul-Haque

ফজলুল হক

সু-রমা এবং ইক্ষুসার, ধ্বংসগোধুলির সেই অন্ধ সন্ধ্যায় অতঃপর
গঙ্গার ভঙ্গের মতো মুছে গেল। অবিরল মুখ মুছিয়ে শুশ্রুষার ডানায় উড়ে গেল অশ্রুজল
দ্বন্দ্বের লজ্জা-জটিলতা-স্মৃতিচিহ্ন এবং চোখের স্বপ্নে স্থির
নক্ষত্রবিন্দুর মতো আমাদের তীর্থে রইল, বর্ণ আর শব্দমীমাংসা!

পাথরে পা রেখে অতঃপর তুমি ডানায় জড়ানো চিহ্নসমগ্র নিয়ে চলে গেছ
আমি সহস্রধারায় রবীন্দ্রনাথ-কার্লমার্কস এবং গীতগোবিন্দের ব্যঞ্জন শরীর ছুঁয়ে
খুঁজেছি অজস্র তল। পূর্বভারতের বহু দূর পর্বত উজানে, পৃথিবীর শহর বন্দরে
অরণ্যসন্ন্যাসে অযুত নক্ষত্রপাত্রপুটে রেখেছি লবণজল, নিঃশ্বাসপ্রপাত

বলেছি দাঁড়াও! প্রায় শিশিরের মতো বহু ঘাসফুল ব্রতপতনের আগে ধর্মসভা
শুচিপ্রতীক্ষায়। বৃষ্টি নিয়ে অথৈ জলের আবীর কল্লোলে জন্মধাত্রী খুঁজে
ফিরে দেখি নেই, বুকের দুধ মরুস্বরে বড় বেশী রহস্য নিয়ে আনন্দচঞ্চল

এই তবে তপোবিহার? করোটির অনর্থ নয়নখন্ড দু’দ- জলের অন্ধকার
স্নেহরব ঝুলে আছে পাতাসমগ্রের তীর্থ ছুঁয়ে। চেয়ে দেখি নীল আয়ু, এপার ওপার গ্রাম
ফেণার চূড়ায় চূড়ায় কৌমগন্ধ-মৃতঠোঁট-ভাষার সংসার আর ফিরে দেখা জন্মভূমির আলো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

}
© Copyright 2015, All Rights Reserved. | Powered by polol.co.uk