বিলেতবাসী লেখকদের বই নিয়ে সংহতি গ্রন্থমেলা:: বিলেতে লেখক-পাঠকদের মাঝে সংহতি অটুট রাখতে অগ্রণী ভূমিকা রাখবে

Share Button

PIC NO 01  FESTUNE PIC
আনোয়ারুল ইসলাম অভি:
আয়োজক সংগঠন সংহতি সাহিত্য পরিষদ আগেই জানিয়ে ছিল সংহতি গ্রন্থমেলা শুরু হবে বেলা ৩টায়। অনুষ্ঠানস্থলে গিয়ে দেখা গেল- বেলা দুইটা থেকে অনেক লেখক-পাঠক উপস্থিত! অনেকে লন্ডনের বাইরের শহরগুলো থেকেও বই এর টানে সংহতি গ্রন্থমেলায় এসেছেন। সংহতির কর্মীদল মেলার পসরা সাজাতে ব্যস্ত, সহাস্যে হলে ডুকছেন একজন-দুজন করে। মুগ্ধকর বিষয় হলো- হলে অন্যসব মেলার মতো হাঁকডাক নেই,অথচ লেখক- দর্শনার্থীতে হলের প্রায় অর্ধেক ভরে গেছে! অনেক লেখক নিজ থেকে ছোটখাটো কাজে হাত লাগিয়েছেন মুগ্ধতায় তৃপ্তির হাসি ছড়িয়ে। ফলত ৮ মে রবিবার পূর্ব লন্ডনের ব্রার্ডি আর্ট সেন্টারে বিলেতবাসী লেখকদের বই নিয়ে অনুষ্ঠিত এই প্রথম গ্রন্থমেলা পরিণত হয়েছিল বিলেতের লেখক-পাঠকের মিলন মেলায়। গ্রন্থমেলার আয়োজক সংগঠন ছিল সংহতি সাহিত্য পরিষদ।
PIC NO 02

বেলা তিনটে থেকে রাত ন’টা পর্যন্ত চলা গ্রন্থমেলায় ছিল বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানমালা- আলোচনা, প্রকাশিত বই এর মোড়ক উন্মোচন এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। তিন পর্বের অনুষ্টান সঞ্চালনায় ছিলেন কবি ইকবাল হোসেন বুলবুল, ছড়াকার রেজুয়ান মারুফ ও কবি আনোয়ারুল ইসলাম অভি।
PIC NO 03মেলায় অতিথি হিসাবে আলোচনায় অংশনেন বিশিষ্ট সাংবাদিক- কলামিস্ট আব্দুল গাফফার চৌধুরী, কবি- গবেষক কাদের মাহমুদ, কবি-কথাসাহিত্যিক সালেহা চৌধুরী,কবি -কথা সাহিত্যিক মাসুদ আহমদ,সাংবাদিক- গবেষক ইসহাক কাজল, চ্যানেল আই ইউরোপের ম্যানেজিং ডাইরেক্টর বিশিষ্ট সাংবাদিক রেজা আহমদ ফয়সল চৌধুরী শুয়েব। অনুষ্টানে সভাপতিত্ব করেন- সংহতি সাহিত্য পরিষদের সভাপতি কবি ফারুক আহমেদ রনি।

এর আগে সংহতির কর্মকর্তাগণ অথিতিদের নিয়ে বেলুন ফেস্টুন উড়িয়ে মেলার শুভ উদ্বোধন করেন। মেলায় বিলেতের ১২০ জন লেখকের বই স্থান পায়। এছাড়াও অতিথিদের নিয়ে ২০১৬ সালে প্রকাশিত বিলেতবাসী ২১জন লেখক তাদের বই এর মোড়ক উন্মোচন এর আয়োজন করে সংহতি।
PIC NO 04 (2)আলোচনা পর্বে প্রধান অতিথি আব্দুল গাফফার চৌধুরী বলেন- বিলেতে বিশেষ করে লন্ডন,বার্মিংহাম, ম্যানচেস্টার থেকে অনেক গুলো বাংলা পত্রিকা প্রকাশিত হয়। নিয়মিত সাহিত্য চর্চা ও উৎসব হচ্ছে বিভিন্ন শহর গুলোতে। সংহতি গ্রন্থমেলা বিলেতে লেখক-পাঠকদের মাঝে সংহতি অটুট রাখতে অগ্রণী ভূমিকা রাখবে। বিলেতবাসী অনেকে ভালো লেখেন। আমার মনে হয়, তারা যদি বাংলাদেশে বসে সাহিত্য চর্চা করতেন তাহলে পাঠক তাদের সম্পর্কে অনেক বেশী জানতে পারতো,লেখক হিশেবেও তাদের স্থান অন্যভাবে মূল্যায়িত হতো।
PIC NO 05বিশেষ অতিথি লেখক -গবেষক মাসুদ আহমদ বলেন- আমার একটি সজ্ঞায় ভীষণ আপত্তি আছে-‘প্রবাসী’ বলতে পারেন। কিন্তু সাহিত্যিকদের কোন সজ্ঞা নেই।তিনি যে কোন জায়গার হতে পারেন। তিনি গাছের নীচে বসে, পার্কে,ঘরে বসেও লিখে থাকতে পারেন। সাহিত্যের জন্য বিশেষ কোন সজ্ঞার প্রয়োজন নেই।তিনি সংহতির উদ্দেশ্যে বলেন-এই সুপেয়,সুদর্শণ দালানটি আমাদের মিলিত হবার।সংহতির যাত্রায় আমরা সব সময় আছি। এই বৃদ্ধবয়সে তোমাদের কোন কাজে আসতে পারি-সেটিও আমরা চেষ্টা করবো।
PIC NO 06    BOOK STALLকবি লেখক কাদের মাহমুদ -বিলাতে অনেক লাইব্রেরী আছে পাঠক ছাড়া। আমাদের পাঠক কোথায়? এই দেশে অনেক ভাষাভাষী লেখকদের বই পাবেন লাইব্রেরী গুলোতে কিন্তু আমাদের বাংলা বই এর আকাল আছে।তার মানে হচ্ছে বাংলা বই এর পাঠকের আকাল। এখানে অনেকেই আছেন-পরিচয় দেন শিক্ষিত বাঙালী।কিন্ত তাদেরকেও বই পড়তে দেখিনা।পত্রিকা পড়েন না,বাংলা পত্রিকা তো পড়েনই না।তারা কি করেন তারাই জানেন!
বিলেতে বাংলা বই এর সবচেয়ে বড় আমদানীকারক রুপসী বাংলা এখন বিলুপ্তির পথে। সংহতি গ্রন্থমেলাতে ১২০ জন লেখকের বই এসেছে-এটা আমাদের জন্য অনেক বড় বিষয়-সংহতিকে ধন্যবাদ।
PIC NO 007কথা সাহিত্যিক সালেহা চৌধুরী বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বই কেনার প্রতি আমাদের অনীহার কথা উল্লেখ করে নিয়মিত সাহিত্য সংস্কৃতি চর্চা ও এর প্রচারের প্রতি গুরুত্ব দিয়ে বলেন -গ্রন্থমেলাটি ধারাবাহিক ভাবেই চালিয়ে যেতে হবে এবং আমাদের বিশ্বাস- সংহতি গ্রন্থমেলা ধারাবাহিক ভাবে চালিয়ে যাবার সকল যোগ্যতা সংহতি রাখে।বই পড়া ও কেনায় আমরা লেখকরা আরও উদ্যোমী হবার জোরাল দরকার আছে।
PIC NO 08

বিশিষ্ট সাংবাদিক,গবেষক ইসহাক কাজল বলেন-সংহতির কাছে আমার একটি অনুরোধ থাকবে- ব্রিকলেনে অনেকগুলো বইয়ের দোকান ছিল। একমাত্র দাড়িয়ে থাকা সঙ্গীতা কতদিন বেচে থাকবে জানিনা। কাজেই সংহতির পক্ষ থেকে একটি বুকসপ খোলা যায় কিনা ভেবে দেখবেন।যদি সম্ভব হয় -আমি সামান্য লেখক হিসাবে সর্বাতœক সহযোগীতায় থাকবো।
PIC NO 09চ্যানেল আই ইউরোপের ম্যানেজিং ডাইরেক্টর বিশিষ্ট সাংবাদিক রেজা আহমদ ফয়সল চৌধুরী শুয়েব বলেন- বিলেতে এতো বড় লেখক সমাবেশ আমাদের উজ্জলতর ভবিষ্যতের স্পষ্ট ইঙ্গিত বহন করে। যারা বিলেতের সাহিত্য চর্চা নিয়ে উস্মাসিকতায় ভোগেন, আলোকিত কর্মগুলো খালি চোখে দেখতে চাননা বা পারেননা,তাদের এইধরনের মেলায়, নবীব প্রবীন লেখকদের মিলন উৎসবে আসা উচিত।তাহলে ধারণার বৃত্ত থেকে বেরিয়ে সরাসরি দেখে, পড়ে সমালোচনা করতে পারবেন। অতীতের মতো চ্যানেল আই ইউরোপ সাহিত্য ও সংস্কৃতি বান্ধব থাকার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছে।
PIC NO 10
‘১৯৮৯ সালে প্রতিষ্টার পর থেকে সংহতি বিলেতে সাহিত্য ও সংস্কৃতি চর্চায় নিবেদিত সংগঠন। আজকের সম্মানীত অতিথিরাও শুরু থেকেই আমাদের সাথে একাতœ হয়ে আছেন।এখানে অনেক প্রবীন লেখক সাহিত্য সংস্কৃতকর্মী এসেছেন,অনেকের সাথে কতদিন পর দেখা! অনেক নতুন লেখক মেলায় এসেছেন।খুব ভালো লাগছে সংহতি গ্রন্থমেলা -লেখক ও পাঠকের মাঝে একটা মেলবন্ধন তৈরীতে অগ্রনী ভূমিকা রাখতে পারছে বলে। সকলের অংশগ্রহনেই একটি সফল গ্রন্থমেলা করা সম্ভব হয়েছে-সবার প্রতি আমাদের অসীম কৃতজ্ঞতা,অভিনন্দন-জানিয়েছেন সংহতির সভাপতি ফারুক আহমেদ রনি।
PIC NO 11
‘২০১৬ সালের একুশে বই মেলায় বিলেতবাসী লেখকদের চল্লিশটির বেশী বই প্রকাশিত হয়েছে । সংহতি আজকে ২১ জন লেখকের বই এর মোড়ক উন্মোচন এর আয়োজন করেছে গ্রন্থমেলাকে সামনে রেখেই। বিলেতের বিভিন্ন শহরে ছড়িয়ে থাকা শতাধিক লেখকদের গ্রন্থমেলায় সম্পৃক্ত করতে সংহতি সক্ষম হয়েছে। এবং নিকট ভবিষ্যতে ইউরোপের লেখকদেরও সম্পৃক্ত করা হবে’- সংহতির পরিকল্পনার কথা বলেন সংগঠনের সাংগঠনিক সম্পাদক কবি সাংবাদিক আনোয়ারুল ইসলাম অভি।
প্রায় সাতাশ বছরে পা দেয়া সংগঠন এর বাংলা ভাষা,সাহিত্য সংস্কৃতি বান্ধব কর্মকান্ড তুলে ধরেন সংগঠনের যুগ্মসম্পাদক কবি তুহীন চৌধুরী।
প্রতিষ্টালগ্ন থেকে বিষয় ভিত্তিক বইসহ অন্যান্য প্রকাশনা ও মৌলিক কর্মকান্ড এর সংক্ষিপ্ত চিত্র তুলে ধরেন সাহিত্য সম্পাদক কবি শামীম শাহান। স্বাগত বক্তব্য রাখেন কবি এ কে এম আব্দুল্লাহ।
PIC NO 12

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে আবৃত্তি করেন বিশিষ্ট আবৃত্তি শিল্পী উর্মি মাযহার,দিলু নাসের,রেজুয়ান মারুফ,মুনিরা পারভিন, সালাউদ্দিন শাহীন, জিয়াউর সাকলেন । মৌলিক গাণে দর্শকদের মুগ্ধ করেছেন শাহীনূর হীরক,শতরুপা চৌধুরী ও নতুন প্রজন্মের শিল্পী মহিমা।
PIC NO 13 LEKOK ADDA
উল্লেখ্য সংহতি ১৯৮৯ সাল থেকে বিলেতে বাংলা ভাষা,সাহিত্য সংস্কৃতি এবং বহুভাষাভাষী লেখক ও সংগঠকদের সাথে কাজ করছে। দেশের বাইরে ধারাবাহিক বড় কবিতা উৎসব এর সাথে সংহতির বিলেতের সাহিত্যপাড়ায় এইবার যোগ করল আরেকটি সৃজনশীল পালক- সংহতি গ্রন্থমেলা। আগামী বছর থেকে ইউরোপে বসবাসকারী বাংলাভাষী লেখকদেরও এইমেলায় সম্পৃক্ত করা হবে বলে সংহতি সাহিত্য পরিষদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

PIC NO 14

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

}
© Copyright 2015, All Rights Reserved. | Powered by polol.co.uk | Designed by Creative Workshop