লুৎফর রহমান রিটনের ছড়া

Share Button

12899563_10208872072180770_165396318_o (3)
অন বিহাফ অব শেখ মুজিবুর আমি মেজর জিয়া

ইন্টারেস্টিং বিষয় থাকে ছেলের হাতের মোয়াতে
ছেলের হাতের মোয়া খাওয়ার চাইনি সুযোগ খোয়াতে
অস্ত্র ছিলো বোঝাই, খালাস করতে গেলাম সোয়াত-এ
চেয়েছিলাম পাকিস্তানের পক্ষে মাথা নোয়াতে
মুক্তিপাগল মানুষগুলোর অন্যরকম ছোঁয়াতে
বদলে যেতে বাধ্য হলাম, বাবা মায়ের দোয়াতে—
অটোমেটিক ঠাঁই পেয়েছি ইতিহাসে ‘ধোঁয়া’তে!

যদিও জানি স্বাধীনতা ছেলের হাতের মোয়া না
স্বাধীনতা অস্পষ্ট আবছা এবং ধোঁয়া না ।
‘একটি জাতির জন্ম’ লিখে সেটাই বলতে চেয়েছি
আমার যেটুক প্রাপ্য আমি বেঁচে থাকতেই পেয়েছি।
এখন দেখছি মরার পরে ইতিহাসের বিকৃতি!
জবরদস্তি ইতিহাসে করছে আদায় স্বীকৃতি!
স্বাধীনতার দলিলপত্রে মিথ্যা তথ্য ছাপাচ্ছে!
মিথ্যাচারের সমস্ত দায় আমার ঘাড়ে চাপাচ্ছে!
জীবদ্দশায় ‘স্বাধীনতার ঘোষক’ নিজকে বলিনি
সুযোগ ছিলো জ্বলে ওঠার, মিথ্যে আলোয় জ্বলিনি।

গ্রেট ন্যাশনাল লিডার ছিলেন শেখ মুজিবুর রহমান
ছাব্বিশে মার্চ তাঁর ঘোষণা ইতিহাসেই বহমান।
উর্দি পরা মেজর ছিলাম, তাঁর তুলনায় নগণ্য
সমকক্ষ নই আমি তাঁর, এইটা ভাবাও জঘন্য!
গ্রিন সিগনাল পেয়েছি তাঁর সাতই মার্চের ভাষণে
আমি থাকবো আমার স্থানে আর তিনি তাঁর আসনে।
ঘোষক এবং পাঠক দুটির অর্থ কিন্তু আলেদা
আমি বুঝলেও বুঝতে চায় না তারেক কিংবা খালেদা।
অন বিহাফ অব শেখ মুজিবুর পাঠ করেছি ঘোষণা
ঐতিহাসিক সত্য এটাই, ওরে মানিক ও সোনা…!
স্বাধীনতার ঘোষণা পাঠ করেছি মার্চ সাতাশে
কী আলোড়ন বাংলাদেশের আকাশে ও বাতাসে!

সাতাশে মার্চ সন্ধ্যা বেলায় পাঠ করেছি বেতারে
ইতিহাসের শক্তি অমোঘ, মুছতে পারে কে তারে?
আমার আগে হান্নানেরা পাঠ করেছে বারংবার
তাঁদের পরে পাঠ করাটাও ঐতিহাসিক অহংকার।
ওঁরা ছিলেন সিভিলিয়ান, নয়কো সেনাবাহিনী
তাই তো আমার ‘ঘোষণা পাঠ’ উদ্দীপনার কাহিনী!

মূল ইতিহাস এই,
এই ইতিহাস মুছে ফেলার কোনোই উপায় নেই!
অন বিহাফ অব শেখ মুজিবুর আমি মেজর জিয়া—
বাংলাদেশের স্বাধীনতার ‘ঘোষণা পাঠ’ কিয়া…..।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

}
© Copyright 2015, All Rights Reserved. | Powered by polol.co.uk | Designed by Creative Workshop