স্বাধীনতা দিবস

হাসান রাউফুন এর ছড়া

মুজিবুর মায়ের মতো দেশ হবে আর ভাইয়ের মতো জাতি নিজের ঘরের সাথে জ্বালে পরের ঘরের বাতি। হাজার হাজার পাতা যেমন থাকে গাছের শাখে এমন মানুষ কমই মেলে কোটি কিংবা লাখে। কাব্যে বুঝি ভাবধারা আর গানে বুঝি সুর লাখে পেয়ে গর্বে মাতি নামটি মুজিবুর

Read More »

লোকমান আহম্মদ আপন’র মুক্তিযুদ্ধের গল্প

মুতির যুদ্ধযাত্রা   -এই ছেলে, এখানে ঘুরঘূর করছ কেনো? -না মানে ইয়ে। -ইয়ে মানে কি? যাও এখান থেকে। স্কুল নেই তোমার। -স্কুল তো বন্ধ। -স্কুল বন্ধ তো এখানে কি? যাও বাড়ি যাও। মুতি আর কথা বাড়ালো না। চুপচাপ সরে গেল সেখান থেকে। সেখান থেকে মানে, নজীব ফার্মেসীর সামনে থেকে। কিছুক্ষণ পর সেখানে এসে আবার ঘুরঘুর করতে থাকে। দেশে হানা দিয়েছে পাকিস্থানী হায়েনারা। নির্বিচারে মারছে মানুষ, পোড়াচ্ছে বাড়ি ঘর। বাংলার দামাল ছেলেরা ঝাঁপিয়ে পড়েছে মুক্তিযুদ্ধে। দেশে চলছে চরম অবস্থা। সিলেটের বিয়ানীবাজার ...

Read More »

ওয়ালি মাহমুদ’র কবিতা

সুদীর্ঘ শব্দ-কথা স্বপ্ন-শুমারির দিনে কবিতারা জেগে থাকে প্রান্তিক স্বজনেরা হাত বাড়িয়ে রেখে দেয় নিঝুম পাঠ-প্রকাশের পয়মন্ত বেলায় সভার বিকেল হলে তবুও জমিয়ে রাখে..। হে জন্মভূমি আমার- যার বুকে জীবনের তিরিশ বছর জমা রৌদ্র ঢাকা, নৈ:শব্দের দুয়ার খোলে চেয়ে থাকা, যেন বা প্রিয়তমা মৃত্তিকায়-বেড়ে ওঠা-পথে দেশের কাছে জীবনের অনেক ঋণ যে গ্রামটি সুদীর্ঘ, হে শব্দ-মিতা আসবে সুদিন, শুধিবার দিন চির সবুজ প্রকৃতির পরিসরে দেখে রাখি মাঠ-ঘাট-শৈশব সব বাঁধা-ই সরিয়ে ভালবাসায়-সংহতিতে ভরা প্রিয় স্বদেশ একদিন শরদিন্দু ছাড়িয়ে আমিও যে কোল নেবো, আশ্রিত ...

Read More »

লুৎফুর রহমানের স্বাধীনতার তিনটি ছড়া

স্বাধিনতা: সেইদিন, এইদিন! রাজাকারের বিচার এবং চাইছে আজি শাস্তি কে? -আর বলো না ও মিয়া ভাই ভ্রষ্ট তরুণ নাস্তিকে। একাত্তরে মুক্তিসেনা ভাঙলো লড়ে ঘোর তাদের -তাদের তখন নামটা দিছি কাফের এবং মুর্তাদের। মুনাফিক ও মীরজাফর আর একাত্তরের রাজাকার -হুজুর আমার ‘সাফছুতরা’ চাইছে ওরা সাজা কার? চাইছে বিচার গণহত্যার একাত্তরের র=্যাপ -চুয়াল্লিশটা বছর গেছে পড়ছে অনেক গ্যাপ -আমরা এখন দেশদরদী কেউবা করি ন্যাপ। সকলদেশে যুদ্ধাপরাধ বিচার আজো হয় -নষ্ট তরুণ বিচার চেয়ে করছে দেশের ক্ষয় দেশপ্রেমটা এতোই যদি করলা পাকির গোলামি? ...

Read More »

কামরুন নাহার রুনু’র কবিতা

তুমি এবার জাগো! চশমাটা মেঝেতে পড়ে ফাটল দিল চার-পাঁচটা, তাই আজকাল ঘোলাটে সব! দেশ স্বাধীন হবার পর থেকে আমি এখনও ঘুমাই নি। আমি কেবল জেগেছিলাম সোনালী শস্য দেখার জন্য! শুধু চেয়েছিলাম, মানুষের মাঝে জাগুক হৃদ্যতা! চাইনি এমন সমাজ, যেখানে কেবল জন্মেছে, নষ্ট ভ্রুণ! পায়ের দগ্ধ ক্ষতে এখনও জ্বালাপোড়া করে এখনও শুশ্রূষার অভাবে গায়ের চামড়া চিংড়ির খোসার মত ফুলে ফুলে উঠে! আমি কেবল দেখে যেতে চেয়েছিলাম; সবুজ মন নিয়ে মানুষ কেমন মানুষের মাঝে বেঁচে আছে; দুধে-আলতা রঙে মানুষের বিশ্বাসী রোদ গায়ে ...

Read More »

দেখিনি স্বাধীনতা

গোলাম সাদত জুয়েল অামি স্বাধীনতা দেখিনি দেখেছি পরাধীনতার শংখল। আামি শোষণ দেখিনি দেখেছি শোষিতের আর্তনাদ অামি স্বাধীনতার আলো দেখিনি দেখেছি যুদ্ববিধ্বস্ত দেশের রাতের অন্ধকার। অামি যুদ্ধ ধর্ষণ দেখিনি দেখেছি ধষিতের করুন চাহনী অামি বাংলাদেশ দেখিনি দেখেছি পশ্চিম পাকিস্তানিদের শোষণ। অামি ৯ মাসের যুদ্ধ দেখিনি, দেখেছি ৩৩ লাখ শহিদের অাত্বত্যাগ। অামি যোদ্ধাপরাধীদের বিচার দেখিনি দেখেছি তাদের ফাঁসির রায়।। আমি দেখিনি ও দেখেছি অনেক কিছু , তারপরও অপলক চোখে দেখি আমার স্বাধীনতা।।।।।

Read More »

‎ফজিলাতুন নাহার রুনু‎’র কবিতা

ঘৃণায় জ্বালিয়ে দেবো যখন মাঝির ছদ্মবেশে মাঝ নদীতে আমার দেশপ্রেমিক ভুলু ভাইকে ওরা খুঁচিয়ে মারে রক্তে,জলে মিশে যেতে যেতে ‘জয় বাংলা’তখন শ্লোগান হয়ে চারদিক কাঁপিয়ে দিয়েছে- জানামাত্রই আমি রাজাকারদের ঘৃণা করতে শিখি আপন চাচাতো ভাইদের মুক্তিযুদ্ধে গেছে বলে মেয়েদের মতো শাড়ি পরার পরেও খোঁপা হাতড়ে গুপ্তধন পেয়ে যাবার মতো উল্লাস করতে দেখি- তখন থেকেই রাজাকার আমার ঘৃণার পাত্র। যখন সবে শাড়ি ধরা মেয়েরা দাদীর শাড়ি পড়ে অযত্নে চুলে,চেহারায় জট, জরা আনতে চেয়েছে- মুক্তি খোঁজার চেষ্টাতে মুরগির খোঁয়াড় খুলে তারা ডিমগুলো ...

Read More »

আবদুল হাসিব এর একগুচ্ছ স্বাধীনতার কবিতা

আমি স্বাধীনতা আসতে দেখেছি আমি স্বাধীনতা আসতে দেখেছি। নয়টি মাস ব্যাপী গিরি নদী দুর্গম পথে ম্লান বিষন্ন বেশে রক্তাক্ত মূর্তিতে ব্যথিত পায়ে সে দিন আমি স্বাধীনতাকে আসতে দেখেছি। নয় বছরের বালক ছিলাম স্মৃতিতে ধারণকৃত অভিজ্ঞান থেকে এখনও বুকের ভিতর আতঙ্কের ভয়ঙ্কর চিৎকার উঠে ধর্ষিতা আর শিশুদের আর্তনাদ কানে ভাসে! বাতাস বিষাক্ত করা কান্নার ভিতর দিয়ে সে দিন আমি স্বাধীনতাকে আসতে দেখেছি। কবরের পাশে ভয়ে ভুলেও যাইনি কোন দিন অথচ, নয়টি মাস দিনে ও রাতে অগণিত গিয়েছি ভাঙা কবরের অন্ধ গর্তে ...

Read More »

চন্দনকৃষ্ণ পাল’র একগুচ্ছ ছড়া

এসো মায়ের চোখের জল ঝরিয়ে যুদ্ধে গেলো সোনার ছেলে, যুদ্ধে গেলো কামার কুমোর চাষী তাঁতী সূতোর জেলে। রক্তে ভিজে সোনার মাটি লক্ষ ছেলে শহীদ হলো, রক্ত রঙে সূর্য সাজে স্বাধীনতা ঘরে এলো। রক্ত ঘাম আর চোখের জলে পূর্ণ স্বাধীনতার ডালি, এসো আজ বীর শহীদের সে স্মৃতিতে প্রদীপ জ্বালি। ২৫শে মার্চ-৭১ শোন বলি ঘুমন্ত এক রাতের কথা জগৎ জুড়ে শব্দহীন এক নিবরতা। মানুষ পশু ঘুমায় রাতের প্রহর জুড়ে কেউ কেউ যায় অচেতনে স্বপ্নপুরে। আঁধার ছুয়ে মানুষ নামের পশু এলো, বিভৎস এক ...

Read More »

সিরাজ উদ্দিন শিরুল’র ছড়া

নিশান   ঐ যে নিশান মুক্ত নিশান রক্তেমাখা লাল, ঐ নিশানে আঁকা আছে একাত্তরের সাল। রণাঙ্গনে দামাল ছেলে সেদিন নিশান হাতে, শত্রু দলে ঝাঁপিয়ে পড়ে লড়লো দিনে রাতে। ঔ নিশানের মূল্য দিতে লক্ষ নর ও নারী, মান দিয়েছে প্রাণ দিয়েছে শপথ নিলাম তারই ।

Read More »
}
© Copyright 2015, All Rights Reserved. | Powered by polol.co.uk